অফবিট

বিশ্বের সেরা দশ ধনী দেশ

বিভিন্ন দেশের ‘আন্তর্জাতিক ডলার’ বিবেচনায় নিয়ে বিশ্বের সবচেয়ে ধনী দশ দেশের তালিকা প্রকাশ করেছে নিউ ইয়র্ক থেকে প্রকাশিত মাসিক ম্যাগাজিন ‘গ্লোবাল ফাইন্যান্স’। এক্ষেত্রে তারা আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের তথ্য ব্যবহার করেছে।

লুক্সেমবার্গ :

ধনী দেশ হিসেবে গত বছর দেশটির অবস্থান ছিল তৃতীয়। এবার দেশটির অবস্থান শীর্ষে। পিপিপি জিডিপিতে মাথাপিছু আয়ও গত বছরের তুলনায় বেড়েছে।

এ বছর এ আয় হলো ১ লাখ ১৮ হাজার ডলার, গত বছর যা ছিল ১ লাখ ১২ হাজার ডলার। লুক্সেমবার্গ হলো ইউরোপের আরেক ট্যাক্স হ্যাভেন বা করস্বর্গ।

সিঙ্গাপুর :

গত বছর চতুর্থ অবস্থানে ছিল দেশটি। এ বছরে মে পর্যন্ত অবস্থান দ্বিতীয়। পিপিপি জিডিপিতে মাথাপিছু আয় ৯৭ হাজার ৫৭ ডলার। গত বছরের চেয়ে আয় কমেছে, তবে অবস্থান বেড়েছে।

গত বছর পিপিপি জিডিপিতে মাথাপিছু আয় ছিল ১ লাখ ৫ হাজার ৭০০ ডলার। এশিয়ার অন্যতম করের স্বর্গরাজ্য বা ট্যাক্স হ্যাভেনের দেশ।

আয়ারল্যান্ড :

পিপিপি জিডিপিতে মাথাপিছু আয় ৯৪ হাজার ৩৯২ ডলার। গত বছর পিপিপিতে মাথাপিছু জিডিপি ছিল ৮৭ হাজার ডলার।

মাসিক ম্যাগাজিন ‘গ্লোবাল ফাইন্যান্স’ এর তালিকার তৃতীয় অবস্থানে আছে ইউরোপের এই দেশটি।

 

কাতার :

গত বছর গ্লোবাল ফিন্যান্সের তালিকায় শীর্ষে ছিল কাতার। ২০ বছর ধরেই তারা শীর্ষ ধনী দেশের অবস্থান ধরে রেখেছিল। তবে এবার দেশটির অবস্থান চলে এসেছে চতুর্থে।

গত বছর তেলের দামের যে তীব্র পতন হয়েছিল, তার প্রভাব পড়তে দেখা গেছে দেশটির অর্থনীতিতে। পিপিপি জিডিপিতে মাথাপিছু আয় ৯৩ হাজার ৫০৮ ডলার।

সুইজারল্যান্ড :

পিপিপি জিডিপিতে মাথাপিছু আয় ৭২ হাজার ৮৭৪ কোটি ডলার। গত বছর পিপিপি ডলারে দেশটির মাথাপিছু জিডিপি ৬৭ হাজার ৬০০ ডলার।

সুইজারল্যান্ড মানেই কেবল ঘড়ি, সাদা চকলেট, সুইস চাকু বা প্রাকৃতিক সৌন্দর্য নয়। পর্যটন তো আছেই, ভারী শিল্পের জন্যও বিখ্যাত দেশটি।

নরওয়ে :

পিপিপিতে মাথাপিছু আয় ৬৫ হাজার ৮০০। ১৯৬০ সালে এখানে তেল আবিষ্কার হয়। যতোদিন পর্যন্ত জ্বালানি তেলের দাম বাড়ছিল, ততোদিন দেশটির সমৃদ্ধি কেবলই বেড়েছে।

তবে ২০২০ সালের জ্বালানি তেলের দামের ব্যাপক দরপতন হয়। সেই সঙ্গে ছিল মহামারির তাণ্ডব। সব মিলিয়ে গত বছর নরওয়ের অর্থনীতি আড়াই শতাংশ সংকুচিত হয়।

যুক্তরাষ্ট্র :

২০২০ সালে করোনার কারণে কঠিন সময় পার করলেও ধনী দেশের তালিকায় এগিয়ে এসেছে যুক্তরাষ্ট্র। পিপিপিতে মাথাপিছু আয় ৬৩ হাজার ৪১৬ ডলার।

ইনস্টিটিউট ফর পলিসি স্টাডিজ অনুসারে মার্চ ২০২০ থেকে এপ্রিল ২০২১–এর মধ্যে আমেরিকার ৭১৯ বিলিয়নিয়ারের সমষ্টিগত সম্পদের পরিমাণ ১ দশমিক ৬২ ট্রিলিয়ন ডলার। বেড়েছে প্রায় ৫৫ শতাংশ।

ব্রুনাই :

পিপিপি জিডিপিতে মাথাপিছু আয় ৬২ হাজার ৩৭১ ডলার। তেলসহ বিপুল প্রাকৃতিক সম্পদ রয়েছে দেশটিতে। এশিয়া মহাদেশের ছোট এই দেশটির সরকারি নাম হচ্ছে ব্রুনাই দারুসসালাম।

১ হাজার ৭৮৮টি কক্ষ, ২৫৭টি বাথরুম, ৫ হাজার অতিথি থাকার একটি হলরুম, পোলো খেলার জন্য ২০০ ঘোড়ার শীতাতপনিয়ন্ত্রিত আস্তাবল নিয়েই এই দেশটির অবস্থান।

হংকং :

এটি সাবেক ব্রিটিশ উপনিবেশ, চীনের এ বিশেষ প্রশাসনিক অঞ্চলটি মূল ভূখণ্ড এবং এশিয়ার শীর্ষ আর্থিক কেন্দ্রের প্রবেশদ্বার। পিপিপি জিডিপিতে মাথাপিছু আয় ৫৯ হাজার ৫২০ ডলার।

স্বল্প কর, উত্তরাধিকার শুল্কবিহীন, আমদানি বা রপ্তানির ওপর কোনো শুল্ক না থাকা দেশটির অর্থনীতির প্রধান বৈশিষ্ট্য। এশিয়া মহাদেশে অবস্থিত এই দেশটি বিশ্ব বাণিজ্যের হাব হিসিবে স্বাকৃতি।

ডেনমার্ক :

পিপিপি জিডিপিতে মাথাপিছু আয় ৫৮ হাজার ৯৩২ ডলার, গত বছর যা ছিল ৬২ হাজার ৩৭১ ডলার। ডেনমার্কের সবচেয়ে বড় র‍্যাঙ্কিং হলো, বিশ্বের সবচেয়ে সুখী দেশের শীর্ষে রয়েছে ডেনমার্ক।

উচ্চশিক্ষা, কাজের সুযোগ বেশি থাকায় ডেনমার্কে অনেক প্রবাসী বসবাস করে। জীবনযাপন ঝামেলামুক্ত বলে বিশ্বের নানান দেশের মানুষ ডেনমার্কে অবস্থান করে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরও পড়ুন