মাত্র দুই মাসেই খাওয়ার উপযোগী দেশি মুরগি’র উদ্ভাবন

রুকাইয়া মীম: দেশীয় জার্মপ্লাজম ব্যবহার করে অধিক মাংস উৎপাদনকারী মুরগির জাত উদ্ভাবন করেছে বাংলাদেশ প্রাণিসম্পদ গবেষণা ইন্সটিটিউট। নতুন জাতের এ মুরগির মাংস স্বাদে দেশি মুরগির মতো।

জানা যায়, এ মুরগির পালক বহুবর্ণ হওয়ার কারণে এর নাম দেওয়া হয়েছে ‘মাল্টি কালার টেবিল চিকেন’ (এমসিটিসি)’। মাত্র ৮ সপ্তাহেই এর গড় ওজন হয় প্রায় এক কেজি, যা খাওয়ার জন্য উপযুক্ত।

এছাড়া মুরগির এ জাতটি রোগ-বালাই সহিষ্ণু ও দ্রুত বর্ধনশীল। পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে এ জাতটির বাণিজ্যিক উৎপাদনেও আশানুরূপ ফল মিলেছে। এ কারণে এতে ব্যাপক সম্ভাবনা দেখছেন সংশ্লিষ্টরা।

বাংলাদেশ প্রাণিসম্পদ গবেষণা ইন্সটিটিউট ২০১৪ সালে প্রথম নতুন মুরগির এ জাত নিয়ে গবেষণা শুরু করে। ২০১৮ সালে গবেষণাগারে সাফল্যের পর মাঠ পর্যায়ে যশোর, সাভার, বরিশাল ও চট্টগ্রামে পরীক্ষামূলকভাবে উৎপাদন শুরু করা হয়।

প্রাণিসম্পদ গবেষণা ইন্সটিটিউটের পোল্ট্রি উৎপাদন বিভাগ বলছে, এ মুরগি মাংস খাওয়ার জন্য উৎপাদন করা হবে, ডিমের জন্য না। এটি আমিষের চাহিদা পূরণে অপরিসীম ভূমিকা রাখবে।

হুবহু দেশীয় মুরগির স্বাদযুক্ত নতুন এই উদ্ভাবনে ক্রেতা ও বিক্রেতাদের মধ্যে উৎসাহ দেখা যাচ্ছে। বাণিজ্যিকভাবে এই মুরগি কবে থেকে পাওয়া যাবে তার জন্য অপেক্ষা করছেন তারা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *