সাহিত্য

যদি দেখা হয় প্রিয় 

যদি দেখা হয় প্রিয়

 

বছর কয়েক পরে যদি দেখা হয় প্রিয়,

চোখে এসে চোখ দুটি মেশে;

অনন্ত সেই ভূবন জুড়ানো হাসি

দিও তুমি আহ্লাদে ভালোবেসে।

 

বেলা-অবেলার আলো-আঁধারির একটু ছায়াতে,

কল্পনার রঙে রাঙানো আমার আকাশে,

অপ্রাপ্তিতেও ভালোবাসা রেখো

আবেগ জড়ানো পরশে।

 

যদি সত্যিই দেখা হয় প্রিয় –

তখন থাকবে না আর হারানোর ভয়,

বুকের মাঝে কোথায় যেন একটু খানি ব্যথা ;

চোখের কোনে জলের ঝিলিক –

মুখে লুকানো হাজারো কথা।

 

ভাবনার বসতি গড়েছি দুজনে

আশা-নিরাশার বাড়ি,

প্রেমের পূজার অর্ঘ্য সাজানো

আমার নৈবেদ্যের ডালি।

 

যদি কাছে না আসে প্রিয়

তবু তুমি কাছে টেনে নিও,

প্রজ্ঞার আলোকে এতদিনের চাওয়া-পাওয়ার,;

হিসাবটুকু মিলিয়ে দিও।

 

আমুল হৃদয়ে দিয়েছি তোমায়,

জীবনের প্রথম ফোটা আবেগ,

তবুও অপ্রাপ্তির নিরাশায় যদি কোনদিন –

ভুলে যাও তুমি!

 

অনেক দুরাশার মাঝেও

আমাদের ভালোবাসার স্মৃতিটুকু

মলিন করো না যেন!

 

ভালোবাসার আবেশে –

আবার এসো ফিরে,

“গীতবিতানের” পাতায় পাতায়

“সঞ্চয়িতার” টানে।

 

তবুও যদি কোনদিন দেখা হয় প্রিয় –

স্বাগত জানাব তোমায় –

আমার ভালোবাসার হৃদ কুঠিরে।।

 

 

 

 

 

 

কলমে: নিপুন দাস , শিক্ষিকা, কবি, লেখিকা, উপস্থাপিকা, আবৃত্তি ও চিত্র শিল্পী।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরও পড়ুন