পেরিলা তেলের দাম
ফুড

ভোজ্য তেলের দাম কমাবে ‘পেরিলা’

আবরার আরাফাত: সম্প্রতি দেশে ভোজ্য তেলের মূল্য বেড়েই চলেছে। মালয়েশিয়া থেকে পাম অয়েল আমদানি বন্ধ হওয়ার কারণেই দেশে দাম বাড়ছে বলে জানিয়েছেন অর্থনীতিবিদরা। এমন সময় শোনা যাচ্ছে একটি কথা পেরিলা তেলের দাম কত!

 

প্রতি বছরই প্রায় ৪৬ কোটি ২১ লাখ মেট্রিক টন তেল আমদানি করা হয়ে থাকে। তবে এবার পাম অয়েলের বিকল্প হিসেবে সম্ভাবনা দেখাচ্ছে পেরিলা নামের একটি বীজ। ২০০৭ সালে শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষিতত্ত্ব বিভাগের অধ্যাপক ড. এইচ এম এম তারিক দক্ষিণ কোরিয়া থেকে সংগ্রহ করেছিলেন এই জাতের বীজ।

 

এই নতুন জাত দেশের আবহাওয়া-তাপমাত্রা সহনশীল। পেরিলা বীজ থেকে উৎপাদিত তেল ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিডসমৃদ্ধ ও উপকারী। এই বীজের ২৫ শতাংশের ওপরে আমিষ থাকায় তেল আহরণের পরে তা থেকে প্রাপ্ত খৈল গবাদিপশুর জন্য পুষ্টিকর খাবার ও জৈব সার হিসেবে ব্যবহার করা যাবে। তাই পেরিনা চাষ বহুমুখী সম্ভাবনার দ্বার উন্মুক্ত করেছে।

 

এছাড়া এই তেলে নেই কোনো ক্ষতিকারক ইউরিক এসিড। ফসলটি লিনোলিনিক এসিড সমৃদ্ধ তেল আহরণ করা সম্ভব। যা সাধারণ তেলের চেয়ে বেশি উপকারি। সে তুলনায় পেরিলা তেলের দাম তুলনামূলক ভালো। কৃষক নিজেই বীজ উৎপাদন করে সংরক্ষণ ও তেল আহরণ করতে পারবেন। মাত্র ৭০-৭৫ দিনের মধ্যেই এই ফসল থেকে হেক্টর প্রতি সর্বোচ্চ ১.৫ টন পরিমাণ বীজ সংগ্রহ করা যাবে।

 

বাংলাদেশের আবহাওয়ায় এই ফসল পেরিলা চাষ করা সম্ভব। চলতি বছর ১২ জানুয়ারি ফসলটি সাউ পেরিলা-১ (গোল্ডেন পেরিলা বিডি) জাত হিসেবে নামকরণ করে কৃষি মন্ত্রণালয় এটি অবমুক্ত করে বিনামূল্যে কৃষকদের মাঝে বিতরণ করছে।

 

ইতোমধ্যে পরীক্ষামূলকভাবে দেশের ১৩টি অঞ্চলে এর চাষ শুরু হয়েছে। পেরিলা চাষ বাণিজ্যিকভাবে সুবিধাজনক। বর্তমানে বাণিজ্যিকভাবে চাষের উৎসাহ দেখিয়েছে বেসরকারি বেশ কিছু প্রতিষ্ঠান।

 

বাণিজ্যিকভাবে চাষ হলে পেরিলা তেল বীজটি দেশের তেলের ঘাটতি কমিয়ে আনার পাশাপাশি দেশের অর্থনীতিতে যথেষ্ট অবদান রাখবে বলে জানিয়েছেন গবেষকরা।

Leave a Reply

আরও পড়ুন

সরিষা, রাইস ব্র্যান ও সূর্যমুখী তেল কেন খেতে বলছেন চিকিৎসকরা!

রাফসান রাজ: মানব দেহের স্থূলতা বৃদ্ধি ও হৃদরোগের ঝুঁকির জন্য […]