বিদ্যুৎচালিত বিমান তৈরি করলো রোলস-রয়েস

রাফসান ভূইয়া: বিশ্বের অন্যতম অটোমোবাইল প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান রোলস রয়েলস। নামদামী ও ধনী ব্যক্তিরাই এই কোম্পানিটির পণ্য ব্যবহার করে থাকে। এবার তারা বাজারে আনতে যাচ্ছে বিমান।

পরীক্ষামূলক উড্ডয়ন করা হয়েছে ব্রিটিশ অটোমোবাইল প্রস্ততকারক সংস্থা রোলস-রয়েসের তৈরি সম্পূর্ণ বিদ্যুৎচালিত বিমান। রোলস-রয়েস বিশ্বাস করে, তাদের তৈরি ‘স্পিরিট অব ইনোভেশন’ বিশ্বের দ্রুততম সম্পূর্ণ বিদ্যুৎচালিত বিমান।

ডার্বিতে অবস্থিত রোলস রয়েসের এয়ারস্পেস সদর দপ্তর বলছে, পরীক্ষামূলক উড্ডয়নে বিমানটির গতি ঘণ্টায় ৬২৩ কিলোমিটার পর্যন্ত উঠেছে। এটি তিনটি ভিন্ন দূরত্ব অতিক্রম করে নতুন বিশ্বরেকর্ড গড়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। সত্যতা যাচাইয়ের জন্য পরিসংখ্যান বিশ্ব এয়ার স্পোর্টস ফেডারেশনে পাঠানো হয়েছে।

উইল্টশায়ারের আমেসবারির বসকম্ব ডাউনে গত ১৬ নভেম্বর পরীক্ষামূলক ফ্লাইটগুলো পরিচালনা করা হয়। ফ্লাইট অপারেশনের পরিচালক এবং পাইলট ফিল ও’ডেল সর্বোচ্চ গতি তোলেন। তিনি বলেন, এটি আমার ক্যারিয়ারের উল্লেখযোগ্য ঘটনা এবং পুরো দলের জন্য এটি একটি অবিশ্বাস্য অর্জন।

রোলস-রয়েস বলেছে, স্পিরিট অব ইনোভেশন ২০১৭ সালে সিমেন্স ই-এয়ারক্র্যাফ্ট চালিত এক্সট্রা ৩৩০ এলই অ্যারোব্যাটিক বিমানের করা রেকর্ডের তুলনায় ঘণ্টায় ১৩২ মাইল বেশি দ্রুততম ছিল। এটি ৯ হাজার ৮৪২ দশমিক ৫২ ফুট ওপরে উঠতে দ্রুততম সময় নেওয়ার রেকর্ডটিও ভেঙেছে ৬০ সেকেন্ডের ব্যবধানে। ঐ উচ্চতায় উঠতে ২০২ সেকেন্ড সময় লাগত।

বিমানটিতে একটি ৪০০ কেডাব্লিউ বৈদ্যুতিক পাওয়ারট্রেন ব্যবহার করা হয়েছে যা একটি ৫৩৫বিএইচপি সুপারকারের সমান। রোল-রয়েস বলেছে, মহাশূন্যে এ পর্যন্ত যুক্ত করা সবচেয়ে শক্তিশালী প্রোপালশন ব্যাটারি প্যাক যুক্ত করেছে যা দিয়ে এক সঙ্গে সাড়ে ৭ হাজার ফোন চার্জ করা সম্ভব।

বিমানের পরীক্ষামূলক যাত্রা শুরু করায় এই নিয়ে বিশ্বের নানান প্রান্তে আলোচনা শুরু হয়েছে।

Leave a Reply