ভিউস

পুরস্কার প্রাপ্তি অনুপ্রেরণা ও দায়িত্ব বাড়িয়ে দেয়

৩১ জুলাই রোববার দিনটি আমার জন্য আনন্দের। কারণ এদিন কাজের স্বীকৃতি হিসেবে আরেকটি অর্জন যুক্ত হয়েছে নামের সাথে। এক এক করে ১৮ তম অর্জনটি আসে এই জন্য মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের দরবারে আবারো শুকরিয়া।

শুকরিয়া, আলহামদুলিল্লাহ। আল্লাহর অশেষ রহমতে প্রতিযোগিতার মাধ্যমে পুরস্কারটি পাই। পুরস্কার যেমন কাজের স্বীকৃতি এনে দেয় তেমনি সামনে এগিয়ে যাবার অনুপ্রেরণা জাগিয়ে দায়িত্বও বাড়িয়ে দেয়।

সরকারের মন্ত্রী পরিষদ বিভাগ ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন এর যৌথ তত্ত্বাবধানে ব্রিটিশ কাউন্সিলের কারিগরি সহায়তায় প্লাটফর্মস ফর ডায়লগ(P4D) প্রকল্পের আওতায় জাতীয় গণমাধ্যম ইনস্টিটিউট প্রথমবারের মতো “NIMC Media Award 2022” প্রদান করেছে এবার।

অডিও, টেলিভিশন ও প্রিন্ট ক্যাটাগরি মিলে মোট ২০জন গণমাধ্যম কর্মী এই পুরস্কার পান। এর মধ্যে বাংলাদেশ বেতার-৪টি, কমিউনিটি রেডিও-৫টি, টেলিভিশন মিডিয়া-৪টি ও প্রিন্ট মিডিয়া পেয়েছে ৭টি।

অভিনন্দন জানাই বেতারের অন্যান্য পুরস্কার বিজয়ী সহকর্মীসহ মিডিয়ার অন্যান্য বিজয়ীদের।

‘সুশাসননের জন্য কৌশলগত যোগাযোগ’ প্রতিষ্ঠায়- তথ্য অধিকার, জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল, সেবা প্রদান প্রতিশ্রুতি, অভিযোগ প্রতিকার ব্যবস্থা ও বার্ষিক কর্ম সম্পাদন চুক্তি-এই ৫টি টুলসের উপর সারাদেশের গণমাধ্যম কর্মীদের নিকট থেকে বিভিন্ন ফরমেটে প্রচারিত/প্রকাশিত–অনুসন্ধানী প্রতিবেদন, ফিচার, নাটিকা, স্পট, পিএসএ/ সিএসএ, প্রামাণ্য ইত্যাদির প্রেক্ষিতে প্রতিযোগিতায় জুরি বোর্ডের চূড়ান্ত বিচারে বিজয়ীদের নাম ঘোষণা করা হয়।

৩১ জুলাই ইন্সটিটিউটের শেখ রাসেল অডিটোরিয়ামে বিজয়ীদের মধ্যে এ পুরস্কার প্রদান করা হয়। পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সম্মানিত সচিব মো. মকবুল হোসেন উপস্থিত ছিলেন।

মেয়ে জুওয়ানাকে সাথে নিয়ে পুরষ্কার গ্রহণ করছেন মোস্তাফিজুর রহমান

এছাড়াও পিএএ, ক্যাবিনেট ডিভিশনের সমন্বয় ও সংস্কার বিভাগের সম্মানিত সচিব জনাব মো.শামসুল আরেফিন, মন্ত্রী পরিষদ বিভাগের যুগ্মসচিব আয়েশা আক্তার, ইউরোপীয় ইউনিয়ন প্রতিনিধি, P4D প্রকল্পের টিম লিডার আর্সেন স্টেফেনিয়ন, ব্রিটিশ কাউন্সিলের কান্ট্রি ডিরেক্টর পুরস্কার বিতরণী আয়োজনে অংশগ্রহণ করেন।

এর বাইরে এনআইএমসির সম্মানিত মহাপরিচালক (অতিরিক্ত সচিব) শাহিন ইসলাম, এনডিসি ও বাংলাদেশ বেতারের উপ-মহাপরিচালক (অনুষ্ঠান) জনাব মোঃ ছালাহউদ্দিন ছাড়াও বেতারের বিভিন্ন উর্ধতন কর্মকর্তা, সমাজের গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গসহ বিভিন্ন মিডিয়ার গণমাধ্যমকর্মীগণ উপস্থিত ছিলেন।

‘তথ্য অধিকার’ ও ‘অভিযোগ প্রতিকার ব্যবস্থা’ বিষয়ে জনসচেতনতা সৃষ্টিমূলক প্রতিবেদন ও প্রমোশনাল অনুষ্ঠানের জন্যে এ পুরস্কারে আমাকেও নির্বাচিত করা হয়।

পুরস্কার মঞ্চে অতিথির হাত থেকে পুরস্কার গ্রহণ করেছি যথারীতি আমার রাজকন্যা জুওয়ানাকে সাথে নিয়ে। সব সময়ে পাশে থেকে অনুপ্রেরণাদানকারী সহধর্মিনী রাবেয়া চৌধুরী জুন এর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

অনুষ্ঠানের স্ক্রিপ্ট রাইটার-প্রতিবেদক জনাব শফিকুল ইসলাম বাহার, উপস্থাপক জনাব শামীম আহমেদ, উপস্থাপিকা সেলিনা আক্তার শেলী ও সম্পাদক মো. আশরাফুল ইসলাম এর প্রতি ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

আরো কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জুরি বোর্ডের সকল সদস্য ও এ প্রতিযোগিতা আয়োজনে জাতীয় গণমাধ্যম ইনস্টিটিউটসহ সংশ্লিষ্ট অন্যান্য সকল বিভাগের প্রতি। যাদের অক্লান্ত পরিশ্রমে এই অনুষ্ঠানটি সফলভাবে সম্পন্ন হয়েছে।

আমার পুরস্কারে সবসময় খুশি হতেন, অনুপ্রেরণা যোগাতেন সদ্য প্রয়াত বাংলাদেশ বেতারের মহাপরিচালক আহম্মদ কামরুজ্জামান স্যার। বেঁচে থাকলে পুরস্কার নিয়ে উনার সাথে দেখা করতে যেতাম। তিনি আজ নেই। আমার এ পুরস্কারটি স্যারকে উৎসর্গ করলাম।

লেখক: মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান, উপ- পরিচালক, বাংলাদেশ বেতার ঢাকা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরও পড়ুন

বিদেশি ব্র্যান্ডের সিগারেট-গুল খায় আমাদের ফ্ল্যাটের জ্বিন !

রাজধানী ঢাকাতে দীর্ঘদিন সিঙ্গেল ফ্ল্যাটে ছিলাম। ২০২১ সালে ডিসেম্বরে কলিজার […]