অফবিট

পুতিন কি পুরো বিশ্ব শাসন করবে, সত্যি হবে সেই ভবিষ্যদ্বাণী

আফনান জাহান:

গত এক মাসের বেশি সময় ধরে ক্রমাগত রুশ হামলা চলছে ইউক্রেনে। রুশ-ইউক্রেন যুদ্ধের মধ্যে সংবাদ শিরোনামে উঠে এলেন বুলগেরিয়ার ভবিশ্যৎদ্রষ্টা বাবা ভাঙ্গা।

আমেরিকায় আল-কায়দার ৯/১১ হামলাসহ বিভিন্ন প্রাকৃতিক ও মানবিক বিপযর্য়ের বিষয়ে একেবারে সঠিক ভবিষ্যদ্বাণী করেছেন বাবা ভাঙ্গা।

সম্প্রতি জানা গেছে, আজ থেকে ২৩ বছর আগে বুলগেরীয় ভবিশ্যৎদ্রষ্টা ভবিষ্যদ্বাণী করেছিলেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন সম্পর্কেও। আসুন জেনে নেয়া যাক কি বলেছিলেন তিনি।

আইরিশ মিররের এক প্রতিবেদন অনুসারে, ১৯৮৯ সালে লেখক ভেলনটিন সিডরভোকে পুতিন সম্পর্কে সতর্ক করেছিলেন বাবা ভাঙ্গা।

তিনি বলেছিলেন, ভ্লাদিমির পুতিনের পতাকা সারাবিশ্বে উড়বে। পুতিনে তত্ত্বাবধায়নে সারাবিশ্ব শাসন করবে রাশিয়া। গোটা ইউরোপ বর্জ্যভূমিতে পরিণত হবে। আর ইউরোপকে দুর্বল করে দেয়ার পর সারাবিশ্ব শাসন করবে রাশিয়া। রাশিয়ার সামনে কেউ দাঁড়াতে পারবে না।

ইউক্রেনে রুশ হামলার ভবিষ্যদ্বাণীও করে এই বুলগেরীয় অন্ধ ভবিশ্যৎদ্রষ্টা বৃদ্ধা বলেছিলেন, রাশিয়াকে কেউ আটকাতে পারবে না। যারা রুশ আগ্রাসনের পথে দাঁড়াবে সেই সমস্ত শক্তিকে নিশ্চিহ্ন করে দেবে মস্কো। এমন একটা সময় আসবে যখন রাশিয়াই বিশ্বের প্রভূ হয়ে উঠবে। রাশিয়া হবে বিশ্বের একমাত্র বড় শক্তি।

২০০০ সালে সারাবিশ্বের জনপ্রিয়তা লাভ করেছিলেন বাবা ভাঙ্গা। ওই বছরই ভ্যারেন্স সাগরে ডুবে গিয়েছিল রুশ নৌ সেনার সবচেয়ে বড় সাবমেরিন ক্রুজ ডুবে মৃত্যৃ হয়েছিল ১১৮ নৌ সেনা সদস্যের।

দশ বছর ধরে সাফল্যের সঙ্গে কাজ করে যাওয়া পরমাণু শক্তিচালিত এই সাবমেরিনটি যে ডুবে যাবে তার ভবিষ্যদ্বাণী আগেই করেছিলেন বাবা ভাঙ্গা। সেই পূর্ব কথন মিলে যাওয়ার পরই লাইম লাইটে এসেছিলেন বাবা ভাঙ্গার নাম। মিলে গিয়েছিল ভবিষ্যদ্বাণীর ৮৫ শতাংশ।

একদিকে যেমন বাবা ভাঙ্গা তিনি প্রাকৃতিক দুযোগের পূর্বাভাস দিয়েছেন পাশাপাশি পৃথিবীর বিভিন্ন শক্তির মধ্যে সংঘর্ষ সম্পর্কে সতর্ক করেছিলেন।

বৈশ্বিক ঘটনা ও মানব ঘটনা সম্পর্কে তার করা অনেক ভবিষ্যদ্বাণী সঠিক বলে প্রমাণিত হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে আমেরিকার টুইন টাওয়ার পতন, মধ্যপ্রাচ্যে আইএসআইএসের উত্থান, ভারত মহাসাগরে ভয়ঙ্কর সুনামির মতো ঘটনা।

বিশেষজ্ঞদের মতে, তার ভবিষ্যদ্বাণীর অন্তত ৬৮ শতাংশ সত্য প্রমাণিত হয়েছে। তবে তার ভক্তদের দাবি সংখ্যাটি ৮৫ শতাংশ।

১৯১১ সালে জন্মেছিলেন বাবা ভাঙ্গা। ১২ বছর বয়সে ঝড়ের কবলে পড়ে তিনি দৃষ্টিশক্তি হারিয়েছিলেন। তবে সেই সঙ্গে তৈরি হয়েছিল তার ভবিশ্যৎ দেখার চোখ। ১৯৯৬ সালে তার মৃত্যু হয়। শোনা যায় নিজের মৃত্যুরও একেবারে সঠিক ভবিষ্যদ্বাণী করেছিলেন তিনি।

সমগ্র বিশ্বে তার লক্ষ লক্ষ অনুসারি রয়েছে। তারা বিশ্বাস করেন বাবা ভাঙ্গা টেলিপ্যাথিসহ একাধিক অতিপ্রাকৃতিক ক্ষমতা ছিল। কেউ কেউ দাবি করেন তিনি ভিনগ্রহীদের সাথেও যোগাযোগ করতে পারতেন।

মজার বিষয় হলো তার এসব ভবিষ্যদ্বাণীর কোনোটিই কোথাও লেখা নেই। তিনি তার ভক্তদেরকে ভবিষ্যদ্বাণীগুলোর কথা বলে গিয়েছিলেন। পারমাণবিক অস্ত্র ও তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধের ভবিষ্যদ্বাণীও বাবা ভাঙ্গা করেছিলেন।

তবে বাবা ভাঙ্গা এমন বলে গেলেও ইউক্রেনের মতো অপেক্ষাকৃত দুর্বল দেশের সামনেই কিন্তু চাপে পড়েছেন পুতিন। প্রথমে মনে করা হচ্ছিল, দিন দুয়েকের মধ্যেই রাশিয়া ইউক্রেন দখল করে নেবে তবে কোনো দেশ সাহায্যের জন্য এগিয়ে না এলেও এখন পর্যন্ত ইউক্রেন যে পাল্টা লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে তা চমকে দিয়েছে সকলকে।

এছাড়া এভাবে যুদ্ধ ঘোষণা করার জন্য গোটা বিশ্বের বহু দেশ তো বটেই, নিজের দেশেই কোনঠাসা রুশ প্রেসিডেন্ট পুতিন। এই মুহূর্তে যা পরিস্থিতি, তাতে অবশ্য বাবা ভাঙ্গার এই ভবিষ্যদ্বাণী ফলার মতো তেমন কিছু চোখে পড়ছে না।

তবে অদূর ভবিষ্যতে এই ভবিষ্যৎ বাণী সত্যি হবে কিনা তার জন্য অপেক্ষা করতে হবে।

Leave a Reply

আরও পড়ুন

বাংলাদেশি ড. সনজীদা খাতুনের হাতে ভারতীয় পদ্মশ্রী পুরস্কার

প্রিয়ালী সান্যাল: বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব ড. সনজীদা খাতুনের হাতে ভারতের […]