অফবিট

ধরা পড়েছে বিশ্বের সবচেয়ে বড় মাছ

মেকং নদীর কম্বোডিয়া অংশে ৩০০ কেজি ওজনের একটি মাছ ধরা পড়েছে। এটি বিশ্বে মিঠাপানির সবচেয়ে বড় মাছ বলে জানিয়েছেন গবেষকেরা।

শাপলাপাতা মাছের মতো দেখতে স্টিংরে প্রজাতির মাছটি প্রায় ১২ জন মিলে তীরে টেনে আনেন।

মাছটি স্থানীয়ভাবে ‘ক্রিস্টেনড বোরামি’ নামে পরিচিত। খেমার ভাষার এই শব্দের অর্থ ‘পূর্ণ চন্দ্র’ বা “পূর্ণ চাঁদ” গোলাকার আকৃতির জন্যই মাছটির এই নাম দেওয়া হয়েছে।

পরে ৪ মিটার (১৩ ফুট) দীর্ঘ মা মাছটি আবার নদীতে ছেড়ে দেওয়া হয়। অবশ্য বিজ্ঞানীদের গতিবিধি ও আচরণ পর্যবেক্ষণের সুযোগ করে দিতে মাছটিতে নজরদারি যন্ত্র (ইলেকট্রনিক্যালি ট্যাগড) বসানো হয়েছে।

স্টিংরে প্রজাতির মাছটির ধরা পরার খবর বিবিসি রয়টার্সসহ আন্তর্জাতিক বার্তাসংস্থাগুলোতে গুরুত্বের সঙ্গে স্থান পেয়েছে।

জীববিজ্ঞানী জেব হোগান বলেন, ‘এটা খুবই রোমাঞ্চকর খবর। কারণ, এটি ছিল বিশ্বের সবচেয়ে বড় (মিঠাপানির) মাছ।’

ছবি: বিবিসি

ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক চ্যানেলের ‘মনস্টার ফিশ (অতিকায় মাছ)’ অনুষ্ঠানের উপস্থাপক ছিলেন হোগান। বর্তমানে এই নদীর একটি সংরক্ষণ প্রকল্পের সাথে যুক্ত আছেন তিনি।

হোগান বলেন, এটা উদ্দীপনা পাওয়ার মতোও খবর। কারণ, এর মানে মেকং নদীর বিস্তৃত এলাকা এখনো প্রাণীদের জীবনধারণের উপযোগী আছে। এটা আশার বিষয় যে এখনো এই বিশাল মাছ এখানে বেঁচে আছে।

তিনি বলেন, “ছয় মহাদেশের নদী, হ্রদে দানবাকৃতির মাছ নিয়ে ২০ বছরের গবেষণায় পাওয়া এটিই পৃথিবীর সর্ববৃহৎ স্বাদুপানির মাছ।“

ওজনের দিক থেকে মাছটি ২০০৫ সালে থাইল্যান্ডের উত্তরাঞ্চলের উজানে ধরা পড়া ২৯৩ কেজির মাগুর প্রজাতির মাছটিকে ছাড়িয়ে যায়, যা এতদিন বিশ্ব রেকর্ড ছিল।

ছবি: বিবিসি

নদী কমিশনের তথ্য অনুযায়ী, বিশ্বে তৃতীয় সর্বোচ্চ বৈচিত্র্যপূর্ণ মাছের ভান্ডার মেকং নদী। যদিও মাত্রাতিরিক্ত মাছ শিকার, দূষণ, লবণাক্ত পানির অনুপ্রবেশ এবং পলি ক্ষয়ের কারণে এই সংখ্যা ব্যাপক হারে কমছে।

গত ১৩ জুন কোহ প্রিয়া দ্বীপের এক স্থানীয় জেলে বিরাটাকার এই স্টিংরে মাছ পাওয়ার কথা গবেষকদেরকে জানান। মাছটি ছিল ৩ দশমিক ৯৮ মিটার লম্বা এবং ২ দশমিক ২ মিটার চওড়া।

এবারেরটা নিয়ে গত মে মাস থেকে দুটো স্টিংরে মাছ পরীক্ষা করে দেখলেন গবেষকরা। আগের স্টিংরে মাছটির ওজন ছিল ১৮১ কেজি।

উল্লেখ্য, জীববৈচিত্র্যে সমৃদ্ধ মেকং নদী তিব্বত মালভূমি থেকে চীন, মিয়ানমার, থাইল্যান্ড, লাওস, কম্বোডিয়া ও ভিয়েতনামের ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরও পড়ুন