সেলুলয়েড

জেমস বন্ডের থিম মিউজিক স্রষ্টা মন্টি নরম্যান এর জীবনাবসান

জেমস বন্ডের নাম বললেই অবধারিতভাবে যার প্রসঙ্গ আসে তার নাম মন্টি নরম্যান। নামের পাশাপাশি মন্টির মিউজিকের প্রসঙ্গও চলে আসে।

এতোগুলো বছরে এতো এতো জেমস বন্ড নির্মিত হয়েছে। শন কোনারি থেকে রজার মুর, পিয়ার্স ব্রসনান থেকে ড্যানিয়েল ক্রেগ, পাল্টেছে বন্ডের চরিত্রে অভিনেতারা।

তবে পাল্টায়নি থিম মিউজিক। ৯৪ বছর বয়সে পরলোক গমন করেন এই থিম মিউজিকের রূপকার মন্টি নরম্যান।

বার্ধক্যজনিত কারণেই ১১ জুলাই মৃত্যু হয়েছে সঙ্গীত পরিচালকের।

জেমস বন্ডের অফিসিয়াল টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে দুঃখপ্রকাশ করা হয়। সেখানে লেখা হয়েছে, ‘’আজ মন্টি নরম্যানের জীবনাবসানে আমরা গভীরভাবে শোকাহত।”

”বিশ্বের সেরা সিক্রেট এজেন্টের সিনেম্যাটিক এন্ট্রান্সকে সহযোগিতা করা মিউজিকের রচয়িতা মন্টি। তাঁর অবদানের জন্য আমরা চিরকৃতজ্ঞ।’’

জেমস বন্ড সিরিজের প্রথম সিনেমা ‘ডক্টর নো’তে (১৯৬২ সাল) প্রথম শোনা যায় এই চিত্তাকর্ষক থিম মিউজিক। সে সিনেমায় বন্ডের চরিত্রে ছিলেন শন কোনারি।

সিনেমাটির প্রযোজক কাবি ব্রকোলির সঙ্গে আগেও কাজ করেছিলেন মন্টি। সেই আলাপের সূত্রেই বন্ডের থিম মিউজিক বানানোর প্রস্তাব পান।

মন্টির রাজি হওয়ার কারণ নির্মাতারা মন্টিকে জামাইকা ট্রিপ দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। এই জামাইকাতেই হয়েছিল ডক্টর নো-এর শুটিং। মন্টির সাথে সেই ট্রিপে যান তার তৎকালীন স্ত্রী তথা গায়িকা ডায়ানা কুপল্যান্ড।

জেমস বন্ডের এই মিউজিক স্রস্টার মৃত্যুকে শোক নেমে এসেছে হলিউডসহ গোটা বিনোদন জগতে। ব্যক্তি মন্টি নরম্যান না থাকলেও ভক্তদের মাঝে তার কর্ম যুগ যুগ ধরে বেঁচে থাকবে। এমনটাই মনে করেন সিনেমা সংশ্লিষ্টরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরও পড়ুন