ভিউস

জন্ম থেকে মৃত্যু পর্যন্ত কাজে লাগে বাঁশ

আফনান রোজা:

জন্ম থেকে মৃত্যু পর্যন্ত কাজে লাগে বাঁশ। কাগজ তৈরি হচ্ছে বাঁশ দিয়ে। তোরণ ও প্যান্ডেল তৈরি, শহরের ভবন নির্মাণেও লাগে বাঁশ। দেশের বিভিন্ন ইপিজেডে বাঁশের তৈরি কফিন ও বাঁশি ইউরোপে রফতানি হচ্ছে।

চায়ের দোকান থেকে শুরু করে করপোরেট অফিস- সবখানেই নানাভাবে ব্যবহৃত হয় বাঁশ। বাঁশের তৈরি পণ্য পরিবেশবান্ধব হিসেবে বিশ্বজুড়ে স্বীকৃতি পেয়েছে।

জলবায়ু পরিবর্তন, দুর্যোগ মোকাবেলা ও ভূমিক্ষয় রোধেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে বাঁশঝাড়। বাঁশের মণ্ড থেকে বস্ত্রশিল্পের তুলা ও সুতা তৈরি হচ্ছে। বিভিন্ন প্রকার ভেষজ ওষুধ হচ্ছে।

বাঁশ দ্রুত বর্ধনশীল একটি উদ্ভিদ। কম বিনিয়োগে বাঁশ চাষে বেশি লাভ হয়। জীববৈচিত্র্য রক্ষা করে এই গাছ।

কুমিল্লা, নোয়াখালী ও মুন্সীগঞ্জসহ সমতল অঞ্চলে অল্প কিছু প্রজাতির বাঁশ দেখা যায়। তবে বান্দরবানের লামা উপজেলার সরই এলাকায় রয়েছে ৩০ প্রজাতির রঙিন বাঁশের জাদুঘর।

বিচিত্র আকারের বর্ণিল বাঁশ দেখতে ভিড় করছেন দর্শনার্থী। দর্শনার্থী সমতল ভূমিতে কয়েক প্রজাতির বাঁশ দেখেছেন। এখানে ৩০ প্রজাতির বাঁশ দেখে দর্শনার্থী মুগ্ধ। কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশন এই জাদুঘর গড়ে তোলেছে।

বাঁশগুলোর বিচিত্র সব নাম। ভুদুম, পেঁচা, স্বর্ণা, ঘটি,ডলু, কালি, বেথুয়া, করজা, তেঁতুয়া, বোম্বে, থাই, মাকলা, মিতিঙ্গা, তল্লা, বরাক, রেঙ্গুন, ফারুয়া, ব্রান্ডিসি, বাইজ্জা, মাকলা, কাঁটা, হেজ, লাঠি, জিগজাক, বারওয়ারী, কনককাইচ ও মুলি বাঁশ।

সাদা নামের বাঁশের পাতাগুলো সাদা। পাশে রয়েছে ঘটি বাঁশ। এই বাঁশ দেখলে মনে হবে, ছোট সুপারি গাছ। দৃষ্টিনন্দন রঙিন স্বর্ণা বাঁশ। সোনালী রঙের বাঁশে শেষ বিকেলের আলো পড়ে ঝলমল করে।

সবচেয়ে লম্বা ও মোটা ভুদুম বাঁশ। ফারুয়া বাঁশের সৌন্দর্য অদ্ভুত। যেন শিল্পীর তুলিতে আঁকা। হেজ বাঁশ ঝোঁপের মতো দেখতে। তার উপর নির্ভয়ে বসে আছে থাকে রংবে রংয়ে নানান পাখি।

জানা যায়, ২০০৭ সালে দেড় একর জমিতে বাঁশ বাগানটি গড়ে তোলা হয়। দেশের বিভিন্ন এলাকা ও দেশের বাইর থেকে বাঁশ এনে এখানে রোপণ করা হয়। বর্তমানে এই বাগানে ৩০ প্রজাতির বাঁশ রয়েছে। আরো প্রজাতি সংগ্রহের পরিকল্পনা রয়েছে।

পৃথিবীতে বাঁশের শতাধিক প্রজাতি রয়েছে। জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থার (এফএও) গ্লোবাল ব্যাম্বু রিসোর্সেস প্রতিবেদন অনুযায়ী, প্রজাতিবৈচিত্র্য ও উৎপাদনগত দিক বিবেচনায় ৩৩ প্রজাতির বাঁশ নিয়ে বাংলাদেশ বর্তমানে সারাবিশ্বে অষ্টম স্থানে রয়েছে। ৫০০ প্রজাতির বাঁশ নিয়ে বিশ্বে প্রথম অবস্থানে রয়েছে চীন। ব্রাজিল ২৩২ প্রজাতি নিয়ে রয়েছে দ্বিতীয় অবস্থানে।

Leave a Reply

আরও পড়ুন

নারী

জলবায়ু পরিবর্তনের নেতিবাচক প্রভাব আঘাত করছে নারীকে

নীলাঞ্জনা বিথি: জলবায়ু পরিবর্তনের নেতিবাচক প্রভাব আঘাত করছে নারীকে। দূষিত […]