সাহিত্য

কখনো জানতে চাওয়া হয় না

সোহাগ রেজা:

জীবন-কর্মের ব্যস্ততায়

মায়ের জীবনের দীর্ঘ সময়

কেটে গেল বন্দিশালায়

এখনও তাই!

জীবনের-যাপনের পরিবর্তন

আসেনি তেমন!

 

আমি বুঝি!

আমার মা মনে-মনে

খোলামনে একটু ঘুরতে চায়

মাঝে-মাঝে ভীষণ

বেড়াতে যেতে চায়

আমি তা ভীষণভাবে বুঝি ;

কিন্তু…. !!

 

আমরা মায়ের সন্তানেরা

এতোটা বুঝেও-

কেন যেন বাবা-মায়ের জন্যে

সময় হয়ে উঠে না

কখনো জানতে চাওয়া হয় না

তাঁদের সেই ছোট্ট চাওয়াটুকু

মাঝে-মাঝে ভীষণ মনে হয়

মা-বাবাসহ অন্য সকল

আপনজনকে সঙ্গে নিয়ে

ঘুরে আসি দেশ-বিদেশে

চেনা জগতের খুব অজানায়।

 

আমার মা-

তাঁর বাবা-মায়ের ভীষণ আদরে

শহুরে পরিবেশে বেড়ে ওঠা মানুষ!

তবুও মা তার ভাগ্যকে মেনে-নিয়ে

গ্রাম্য পরিবেশের সাথে

বেশ কয়েক যুগ পাড় করে দিলেন !

সময় পরিবর্তন করে দেয় সবই !

সবারই বয়স বাড়ে –

আমাদেরও বয়স বেড়েছে বেশ!

আমরা তাঁদের ফেলে আসা

পুরোনো সেই সুন্দর দিনগুলো

আনমনে খুঁজে যাই !

 

সময়ের ব্যবধানে

কেউ-হয়েছেন বাবা-মা

কিংবা শ্বশুর-শাশুড়ী

কেউবা হয়েছেন দাদা-দাদী

কিংবা নানা-নানী

বয়স কিন্তু থাকেনি থেমে-

কিংবা মধুর সময়!

সবই-তো হয়েছে অতীত-

সাথে মায়ের স্বপ্ন-

কিংবা ছোট্ট আশা!

তাঁর বুকে যতই আসুক আঘাত-

সযতনে দিয়ে যায় যে

স্নেহ-ভালবাসা!!

 

বাবা-মা তো দিয়েছেন ঢের

আমরা পারিনি কিছু

সুখগুলো তাই যাচ্ছে ছেড়ে

কষ্ট নিয়েছে পিছু!

মায়ের সব কষ্ট-ব্যাথা

সে চাপিয়ে রাখেন মনে

তবুও থাকেন হাসি-খুশি

প্রায় সর্বক্ষণে !!

লেখক: টিভি ও বেতার সংবাদ উপস্থাপক, গীতিকার বিটিভি ও বেতার, কবি, আবৃত্তিশিল্পী, নাট্যকর্মী ও বেতার ঘোষক

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরও পড়ুন