অবশেষে জানা গেল সালমানের ব্রেসলেট ‘রহস্য’

ইসরাত জাহান পুস্পিতা :

২০২১ সালের ২৭ ডিসেম্বর ৫৬তম জন্মদিন পালন করে নতুন করে আলোচনায় আসেন বলিউড সুপার স্টার সালমান খান। নিজের পানভেলের খামারবাড়িতে পার্টির আয়োজনে পরিবারের সদস্যদের বাইরে সাবেক প্রেমিকা ইউলিয়া ভান্টুর ও সঙ্গীতা বিজলানি উপস্থিত হন।

এরপর ইংরেজি ২০২২ নববর্ষেও একই জায়গায় আরও একটি পার্টির আয়োজন করে সেখানেও সালমানের সাবেক প্রেমিকারা হাজির হন। আবার আলোচনায় আসেন ভাইজান।

সালমান খান এর আগেও ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চন, সোমি আলী, ক্যাটরিনা কাইফসহ অনেক নায়িকার সঙ্গে প্রেমে জড়িয়েছেন। এদের সবাই প্রায় সংসারী। ক্যাটরিনাও সম্প্রতি বলিউড অভিনেতা ভিকি কৌশলকে বিয়ে করে সংসার শুরু করেছেন। ক্যাটরিকা দামী গাড়ি উপহার দিয়ে আলোচনায় আসেন সালমান।

এমন সময়ে একের পর এক পার্টিতে সালমানের সঙ্গে সঙ্গ দিচ্ছেন সাবেক প্রেমিকারা। লুলিয়া ভান্টু ও সঙ্গীতা বিজলানি সম্পর্কে পাট চুকিয়ে দিলেও সালমানের সঙ্গে যোগাযোগ রেখে গেছেন। এ কারণেই সালমানের পার্টির সঙ্গী হচ্ছেন তারা। আর সালমানকেও পার্টিগুলোতে বেশ খোশ মেজাজে দেখা যাচ্ছে।

সালমানের বর্ষবরণ পার্টিতে আরও হাজির হয়েছিলেন হলিউডের অভিনেত্রী সামান্থা লকউড, বীণা কাক এবং তার মেয়ে অমৃতা কাক।

বলিউডের ভাইজান খ্যাত সালমান খান বিয়ে কেন করেন না; এমন প্রশ্নের পাশাপাশি এই সুপারস্টারের নানা রহস্য আজও অজানা। তেমনি এক রহস্য হচ্ছে তার ডান হাতে থাকা ব্রেসলেট। একমাত্র সিনেমার প্রয়োজন ছাড়া সেই ব্রেসলেটটি হাতছাড়া করেন না তিনি। দিনরাত তিনি সেটি পরেই থাকেন! কিন্তু কেন? এবার এই প্রশ্নের উত্তর দিয়েছেন এই সুপারস্টার।

বাবার কাছ থেকে ব্রেসলেটটি উপহার হিসেবে পেয়েছিলেন বলে আন্তর্জাতিক এক ইভেন্টে সাংবাদিকের প্রশ্নের উত্তরে নিজেই এই তথ্য জানিয়েছেন সালমান। তার ভাষায়, ‘ছোটবেলা থেকেই দেখেছি, সবসময় এ রকমই একটা ব্রেসলেট আব্বা পরে থাকতেন। সে সময় ভাবতাম, ব্রেসলেট পরে বাবাকে কী ‘কুল’ই না লাগছে! বাচ্চারা যেমন সব কিছু নিয়ে খেলাধুলা করে, আমিও বাবার ব্রেসলেটটা নিয়ে খেলতাম।’

‘‘বাবার ব্রেসলেটটি পছন্দ হলেও ছোটবেলায় সেটি হাতে আসেনি। তার জন্য দীর্ঘদিন অপেক্ষা করতে হয়েছে। ছোটবেলায় ব্রেসলেট পরতাম না। তবে বলিউডে কাজ শুরুর করার পর বাবা আমাকে একেবারে নিজের ব্রেসলেটের মতো দেখতে একটি ব্রেসলেট উপহার দেন। সেই থেকে এটা আমার সঙ্গেই রয়েছে।’

নিজের ডান হাতের ব্রেসলেটটিকে সৌভাগ্যের প্রতীক বলে মনে করেন সালমান। তার ভাষায়, ‘আমার ব্রেসলেটের মধ্যে এই যে পাথরটা দেখছেন, একে ফিরোজা বলে। এ ধরনের পাথর দুটিই রয়েছে। একটা হলো আকিক আর একটা ফিরোজা। এই ফিরোজাটি হলো নীলকান্ত মণি।’

ব্রেসলেটের পাথরটি নিয়ে একটি বদ্ধমূল ধারণাও রয়েছেন সালমানের। তার কথায়, ‘সব নেতিবাচক মনোভাব বুঝে নেয় ফিরোজা। প্রতিবার অশুভ কিছুর মুখোমুখি হলে তা বুঝতে পারে ফিরোজা।’

১৯৮৮ সালে জে কে বিহারির ফিল্ম ‘বিবি হো তো অ্যাইসি’-তে সহ-অভিনেতা হিসেবে বলিউডে অভিষেক হয়েছিল এই সুপার স্টারের। তারপর বলিউডে ৩০ বছরেরও বেশি সময় পার করে ফেলেছেন চিত্রনাট্যকার সেলিম খানের ছেলে সালমান খান।

এই কয়েক দশকে সালমান খান একটি ‘ব্র্যান্ড’-এ পরিণত হয়েছেন, তা তার সবচেয়ে প্রতিপক্ষও স্বীকার করতে দ্বিধা করেন না। ফলে সালমানের ফিল্ম তো বটেই, তার ব্যক্তিজীবন যাপন নিয়েও মানুষের বেশ আগ্রহ রয়েছে।

এমনকি তিনি কোনো পার্টিতে কী পোশাকে এলেন বা হেয়ারস্টাইল বদলালেন কি না, তা নিয়ে ‘পেজ থ্রি’-র পাতা জমজমাট থাকে। তবে সাল্লু মিয়ার ডান হাতের ব্রেসলেট নিয়ে দীর্ঘদিন বিশেষ কিছু জানা যায়নি।

বাজরাঙ্গি ‘ভাইজান’ তার ডান হাতে যে ব্রেসলেটটি পরেন, তা নিয়ে দীর্ঘ দিন বিশেষ কিছু জানা যায়নি। এ ‘রহস্য’ সালমান খানের বহু ভক্তের কাছে অজানা থাকলেও ‘গুরু’র দেখাদেখি তারাও ব্রেসলেট পরতে শুরু করে দিয়েছেন। সেটি তাদের ব্যক্তিত্বের সঙ্গে যতই বেমানান হোক না কেন!

তবে সালমানের ব্রেসলেটের রহস্য যেহেতু ফাঁস হয়ে গেল সেহেতু এখন তার ভক্তরা গুরুর দেখাদেখি পরবেন না। জেনে বুঝেই ব্রেসলেট পরবেন।

চলতি বছর ‘টাইগার ৩’ সিনেমায় দেখা যাবে সালমানকে। সিনেমাটিতে তার বিপরীতে রয়েছেন ক্যাটরিনা কাইফ। এছাড়াও ‘পাঠান’ এবং ‘কভি ইদ কভি দিওয়ালি’-তেও দেখা যাবে সালমনকে। পাশাপাশি, ‘বাজরাঙ্গি ভাইজান’-এর সিক্যুয়েল করারও ইঙ্গিত দিয়েছেন এ অভিেনতা।

বলিউডের সবচেয়ে বড় তারকা সালমান খানকে বিশ্ব ও ভারতীয় চলচ্চিত্রের অন্যতম ব্যবসাসফল অভিনয়শিল্পী বলে আখ্যায়িত করা হয়। ফোর্বস সাময়িকীর ২০১৮ সালের বিশ্বের সর্বোচ্চ পারিশ্রমিক গ্রহীতা ১০০ তারকা বিনোদনদাতা তালিকা অনুসারে সালমান খান ৩৭.৭ মিলিয়ন ডলার আয় করে ভারতীয়দের মধ্যে শীর্ষস্থানীয় এবং সারা বিশ্বে ৮২তম স্থান অধিকার করেন।

জন্ম ও পরিবার:

সালমান খান ১৯৬৫ সালের ২৭ ডিসেম্বর ভারতের মধ্যপ্রদেশের ইন্দোরে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি চিত্রনাট্যকার সেলিম খান এবং তার প্রথম স্ত্রী সুশীলা চরকের (পরে সালমা খান নাম গ্রহণ করেন) বড় ছেলে। সালমানের বাবা সেলিম খান অভিনেতা ও চিত্রনাট্যকার হিসেবে পরিচিত হলেও এক সময় তিনি পুলিশ কর্মকর্তা ছিলেন।

সেলিম ১৯৬৪ সালে সুশীলাকে বিয়ে করেন। পরের বছর সালমানের জন্ম হয়। জন্মের সময় তার নাম রাখা হয় আব্দুর রশিদ সেলিম সালমান খান। পিতার দিক থেকে তার পূর্বপুরুষগণ ছিলেন বর্তমান পাকিস্তানের সোয়াত উপত্যকার আলাকোজাই পশতুন, যারা ১৮০০-এর দশকের মাঝামাঝি সময়ে মধ্যপ্রদেশের ইন্দোরে অভিবাসিত হয়ে এসেছিলেন।

তার পিতামহ আবদুল রশিদ খান ছিলেন ইন্দোর রাজ্যের ডেপুটি ইনস্পেক্টর জেনারেল, যিনি হোলকার সময়ে দিলার জাং পুরস্কার অর্জন করেছিলেন। সালমানের মাতা মহারাষ্ট্রীয়, তার পিতা বলদেব সিং চরক জম্মু-কাশ্মীরের একজন দুগ্রা রাজপুত ছিলেন।

সেলিম-সুশীলা দম্পতির চার সন্তানের বাকিরা হলেন দুই পুত্র অভিনেতা ও প্রযোজক আরবাজ খান ও সোহেল খান এবং এক কন্যা প্রযোজক ও পোশাক নকশাবিদ আলভিরা খান অগ্নিহোত্রী, যিনি অভিনেতা ও পরিচালক অতুল অগ্নিহোত্রীকে বিয়ে করেন। ১৯৮১ সালে দ্বিতীয় বিয়ে করেন সেলিম খান। তার দ্বিতীয় স্ত্রী বলিউডের অভিনেত্রী হেলেন। বিয়ের পর কন্যা অর্পিতা খানকে দত্তক নেন সেলিম-হেলেন দম্পতি।

শিক্ষা জীবন:
সালমান খান গোয়ালিয়রের সিন্ধিয়া স্কুলে পড়াশোনা শুরু করেন। সেখানে তিনি ও তার ছোট ভাই আরবাজ কয়েক বছর পড়াশোনা করেন। এরপর তিনি মুম্বইয়ের বান্দ্রার সেন্ট স্ট্যানিসলস হাই স্কুল থেকে তার স্কুলজীবন সমাপ্ত করেন। পরে তিনি মুম্বইয়ের সেন্ট জেভিয়ার্স কলেজে ভর্তি হয়েছিলেন, কিন্তু পড়াশোনা সমাপ্ত করতে পারেননি।

স্কুলে পড়ার সময় বহুবার সাঁতার প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন তিনি। ভারতের প্রতিনিধি হিসেবে তিনি দেশের বাইরেও সাঁতার প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছেন। সালমান খানের উচ্চতা পাঁচ ফুট ছয় ইঞ্চি। তবে কম উচ্চতা কখনোই তার সাফল্যে ভাটা পড়তে দেয়নি।

 

 

Leave a Reply